October 28, 2020, 6:16 am

সাতক্ষীরায় তেল-পানিপড়া হুজুরের তেলেছমাতি চিকিৎসা কারবার, একদিনেই রোগী দেখেন ৪০০

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি:: সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল হতে মাত্র ৬ কিলোমিটার দূরে ভোমরা স্থলবন্দর সড়কের পাশেই গাংনি গ্রামে হঠাৎ তেল ও পানিপড়া ডাক্তারের আবির্ভাব ঘটেছে। ডাক্তার বাড়ির সামনে হোমিওপ্যাথিক কোর্সের একটি সাইনবোর্ড লাগিয়ে প্রতারণার ফাঁদ পেতে তেল ও পানিপড়া দিয়ে প্রতিদিন ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। তার প্রতারণার ফাঁদে যারা পা দিচ্ছে তারা বেশিরভাগ মহিলা। এলাকাবাসী জানিয়েছেন, প্রতিদিন শত শত রোগী সিরিয়াল দিয়ে তার কাছে ফজরের নামাজের পর হতে রাত ১২টা পর্যন্ত চিকিৎসা নিচ্ছেন। এমনই অভূতপূর্ব ডাক্তারের চিকিৎসা সেবা সরেজমিন অনুসন্ধানে গিয়ে সত্যতা পাওয়া যায়। গাংনি গ্রামের মোহাম্মদ কামরুজ্জামান পেশায় একজন বীমা কর্মকর্তা হিসেবে পরিচয় দেন। বর্তমান হোমিওপ্যাথিক কোর্সের কারণে নামের আগে ডাক্তার লাগিয়ে দেদারছে পানিপড়া, তেলপড়া যাদুকরী চিকিৎসায় তেলেছমতি কারবারের জন্ম দিয়েছে। এমন ঘটনার অনুসন্ধানে ২৪ আগস্ট দুপুর ১ টায় তার ডেরায়/আস্তানায় গিয়ে শত শত রোগীকে সিরিয়াল দিয়ে বসে থাকতে দেখা যায়। এসময় সিরিয়াল চলছিল ১৪৪ নম্বরে। রোগীদের ভীড় এতটাই বেশি যে, তার আস্তানার আশে পাশে রীতিমতো বাজার বসেছে। চিকিৎসা নিতে আসা ঘোনা গ্রামের মরিয়াম বেগম জানিয়েছেন, তিনি ডায়বেটিসের রোগী। তার তেলপড়া ও পানিপড়া নিয়ে ডায়বেটিস নিয়ন্ত্রণে। একই কথা অন্য রোগীরা ভিন্ন রোগের জন্য বললেও কেউ কেউ এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, দীর্ঘদিন তেল ও পানিপড়া নিতে হবে, তাহলেই কাজ হবে। সেই আশ্বাসেই অনেকেই চিকিৎসা নিতে আসেন। প্রতিবারই ফিস, হোমিওপ্যাথিক মেডিসিন সহ তেল ও পানিপড়া বিল আসে ১৩০ থেকে ১৫০ টাকা। কথা হয় তেল ও পানিপড়া ডাক্তার কামরুজ্জামানের সাথে। তিনি এ প্রতিবেদকের নিকট অকপটে স্বীকার করেন, তেল ও পানিপড়ায় মানুষের উপকার হচ্ছে তাই রীতিমতো ভীড় জমেছে। এসময় নিজেকে ক্ষমতাধর প্রমাণ করতে সাংবাদিককে ঘায়েলের উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আবু জাফর নামের এক কর্মকর্তার সাথে ফোনে কথা বলিয়ে দেয়। ফোনে কথা বলা ব্যক্তি প্রথমে নিজেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা দাবী করে জড়তার স্বরে এ প্রতিবেদককে থ্রেটমূলকভাবে বিভিন্ন কথা জানতে চায়। প্রতিবেদকের কলাকৌশুলী কথায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা কলারোয়ার সন্তান হতভম্ব হয়ে দ্বিতীয়বার পরিচয় না দিয়ে সংযোগটি বিচ্ছিন্ন করে দেয়। ডাক্তারের একান্ত সহকারী এ প্রতিবেদককে জানায় ২৩ আগস্ট ৪শ রোগী দেখেছেন। আজ ১শত ৪৪ সিরিয়াল চলছে। বর্তমান আধুনিক বিজ্ঞান ও উন্নত চিকিৎসার যুগে মান্দাতার আমলের তেলপড়া, পানিপড়া কবিরাজ কিভাবে এমন চিকিৎসা সেবা অব্যাহত রেখেছে জানতে সাতক্ষীরা সিভিল সার্জন ডাঃ শাহিনুর রহমানের নিকট যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, দ্রুতই তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর